২৪ ঘন্টাই খবর

দেশজুরে চলমান লকডাউন ও কঠোর বিধিনিষেধের কারণে টানা সাতদিন শিমুলিয়া ঘাট যাত্রীশূন্য থাকার পরে হঠাৎ বৃহস্পতিবার সকালে ৯ টা থেকে শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী ও পণ্যবাহী যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে।




তুষার আহাম্মেদ- দেশজুরে চলমান লকডাউন ও কঠোর বিধিনিষেধের কারণে টানা সাতদিন শিমুলিয়া ঘাট যাত্রীশূন্য থাকার পরে হঠাৎ বৃহস্পতিবার সকালে ৯ টা থেকে শিমুলিয়া ঘাটে যাত্রী ও পণ্যবাহী যানবাহনের চাপ বৃদ্ধি পেয়েছে।

 

আসন্ন কুরবানীর ঈদের আগে লকডাউন থাকবে- এমন আশঙ্কায় রাজধানী ছেড়ে ফের গ্রামে পথে ছুটছে দক্ষিণ বঙ্গগামী যাত্রীরা।

 

এর আগে কঠোর লকডাউনের শুরু থেকে প্রথম সাতদিন শিমুলিয়া ঘাটের পার্কিং ইয়ার্ডগুলো যানবাহন ও যাত্রীশূন্য হয়ে পড়েছিল।

 

ফলে ঘাট এলাকায় তিনটি ফেরিঘাটের জায়গায় একটি ঘাট চালু ছিল।

 

তবে আজ সকাল থেকে ঘাট এলাকায় যাত্রী ও যানবাহনের চাপ কিছুটা বৃদ্ধি পাওয়ায় তিনটি ফেরিঘাট চালু করা হয়েছে হয়েছে বলে জানিয়েছে বিআইডব্লিউটিসি’র শিমুলিয়া ঘাট কর্তৃপক্ষ।

 

তবে এই কয়েক দিন যানবাহন ও যাত্রীর অপেক্ষায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে এসব ফেরি গুলোকে।

 

কিন্তু আজ থেকে দ্বিতীয় ধাপে আগামী ১৪ ই জুলাই পর্যন্ত লকডাউনের সময় বৃদ্ধির কারনে ভোর রাত থেকেই রাজধানী ঢাকা থেকে যাত্রীরা সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ইজিবাইক ও মোটরসাইকেলে করে ঘাটে আসছেন।

 

মাওয়া ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট রাসেল মোশাররফ জানান, ঘাটে মানুষের চাপটা বেশি। সকাল থেকে মানুষ ধীরে ধীরে ঘাটে এসে ভিড় করছে এবং বিভিন্ন অজুহাত দিচ্ছে। অ্যাম্বুলেন্সেও মানুষ আসছে ।তবে ঘাটের প্রবেশমুখ গুলো সহ ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে চেকপোস্ট বসিয়ে আমরা চেষ্টা করছি যাত্রীদের মাক্স পড়া সহ স্বাস্থ্যবিধি মানাতে।

 

বিআইডব্লিউটিসি শিমুলিয়া ঘাটের সহ উপ-মহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) মোঃ শফিকুল ইসলাম জানান, লকডাউন এর সময় বৃদ্ধির আশঙ্কায় ফের যাত্রীর চাপ কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে ঘাট এলাকায়।

 

তাই ৯টি ফেরি দিয়ে ঘাট স্বাভাবিক রাখে চলছে যাত্রী ও যানবাহন পারাপার। বর্তমানে ঘাটে ব্যক্তিগত ও অ্যাম্বুলেন্স সহ প্রায় শতাধিক গাড়ি ফেরির অপেক্ষায় রয়েছে দুপুর আড়াই টা পর্যন্ত।

Leave A Reply

Your email address will not be published.