২৪ ঘন্টাই খবর

সরাইলে ভোর থেকেই সড়কে পুলিশ ; মাস্ক ব্যবহারে অনীহা

সীমান্ত এলাকায় হুহু করে বাড়ছে করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে উদ্বেগ উৎকন্ঠা। তিন দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছেন সরকার। লকডাউন চলাকালে পণ্যবাহী যানবাহন ও রিকশা ছাড়া সকল যানবাহন বন্ধ থাকবে। বন্ধ থাকবে সকল শপিং মল মার্কেট। সোমবার সকাল ৬ টা থেকে শুরূ হয়েছে লকডাউন। চলবে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত। কিন্তু লকডাউন উপেক্ষা করছেন যানবাহনের চালকরা। আর মাস্ক ব্যবহারে অনীহা দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার লোকজনের। তকে কঠোর অবস্থানে পুলিশ। সরজমিনে দেখা যায়, ভোর পাঁচটার পরই সরাইলের বিভিন্ন সড়কে নেমে পড়েছেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আসলাম হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ। সড়কে অনুমোদন বিহীন যানবাহন আটকাতে গুরূত্ব স্থান সমূহে তৈরী করা হয়েছে চেক পোষ্ট। বাঁশের মাচা ও লম্বা টেবিল ফেলে তৈরী করেছেন প্রতিবন্ধকতা। সরাইলের কুট্রাপাড়া মোড়, হাসপাতাল মোড়, কালিকচ্ছ বাজার, অন্নদা স্কুল মোড় ও বিশুতারা এলাকায় তৈরী করা হয়েছে তৈরী প্রতিবন্ধকতা। আটকা পড়ছে একের পর এক মাইক্রো, ট্রাক্টর, পিকআপ ভ্যান, সিএনজি চালিত ও ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা। অতিরিক্ত যাত্রী। গাড়ির ষ্টাফ ও যাত্রী কারো মুখেই নেই মাস্ক। সড়কে চলাচলকারী সকল যানবাহনের একই অবস্থা। সড়কে চলাচলকারী শিশু কিশোর যুবক বৃদ্ধ মহিলা পুরূষ সকলের মধ্যেই দেখা যায় মাস্ক ব্যবহারে অনীহা। অনেকে মাস্ক কুচলিয়ে পকেটে লুঙ্গির ভাজে রেখেছেন। মাস্ক বিহীন ৫-৬ জন করে যাত্রী অটোরিকশায় ঘুরছেন দেদারছে। পুলিশ মাস্কও বিতরণ করছেন। সিএনজি চালকরা পুলিশকে ফাঁকি দিতে বেচে নিয়েছেন শাহপাড়া বড়দেওয়ান পাড়া ও নিজসরাইল মহল্লার ভেতরের সড়ক। নিজেদের আড়াল করতে চলছে বেপরোয়া। ফলে ওই মহল্লায় বসবাসরত পরিবার গুলোর শিশু কিশোরদের দূর্ঘনায় পড়ার ঝুঁকি বেড়ে গেছে। এখন পর্যন্ত সরাইল সদরের মার্কেট শপিংমল ও বিপণী বিতান গুলো বন্ধ থাকলেও সরাইল-নাসিরনগর সড়কের পাশের পশুর হাটের ক্রেতা বিক্রেতাদের মুখে নেই মাস্ক। সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আসলাম হোসেন বলেন, সরকার দেশের মানুষকে করোনা মহামারি থেকে বাঁচানোর জন্যই লকডাউন ঘোষণা করেছেন। আমাদের উচিত এ কাজে সরকারকে সহযোগিতা করা। আমরা লকডাউন বাস্তবায়নে ও সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধের প্রতি সাধারণ মানুষের আন্তরিকতা মনযোগ বৃদ্ধিতে সর্বদা কাজ করে যাচ্ছি।

Leave A Reply

Your email address will not be published.