২৪ ঘন্টাই খবর

যেকোনো সময় ১৪ দিনের শাটডাউনের ঘোষণা আসতে পারে।

যেকোনো সময় ১৪ দিনের শাটডাউনের ঘোষণা আসতে পার


 

 

 বিপুল বড়ুয়া ঢাকাঃ

 

 

 

করোনা পরিস্থিতির ক্রমঅবনতি হওয়ায় পরিস্থিতি মোকাবেলায় যেকোনো সময় সারাদেশে ১৪ দিনের জন‌্য সম্পূর্ণ শাটডাউনের ঘোষণা দিতে পারে সরকার। করোনা সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সুপারিশে সরকার কঠোর এই সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে। এজন‌্য সরকার সার্বিক প্রস্তুতিও নিয়েছে।

 

১৪ দিনের সম্পূর্ণ ‘শাটডাউন’ করা সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সুপারিশকে যৌক্তিক বলে মনে করেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

 

গতবাল বৃহস্পতিবার রাতে আমা‌দের কে তিনি বলেন, করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি সরকার কিছুদিন ধরেই গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করছে। এখন জাতীয় পরামর্শক কমিটি যে সুপারিশ করেছে, সেটি যৌক্তিক। এ জন্য সরকারের সার্বিক প্রস্তুতিও রয়েছে। সরকারও কঠোর বিধিনিষেধের চিন্তাভাবনা করছে। যেকোনো সময় সরকার তা ঘোষণা দেবে।

 

ফরহাদ হোসেন বলেন, করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় দেশের বিভিন্ন জায়গায় স্থানীয়ভাবেও কঠোর বিধিনিষেধ দেওয়া হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে শুরু করে বিভিন্ন জায়গায় সেটি চলছে। সেখানে তা কার্যকরও হচ্ছে। এখন ঢাকার চারপাশের সাত জেলাতেও কঠোর বিধিনিষেধ দেওয়া হয়েছে।

 

এর আগে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়া এবং জনগণের জীবনের ক্ষতি প্রতিরোধের জন্য সারা দেশে কমপক্ষে ১৪ দিন সম্পূর্ণ ‘শাটডাউনের’ সুপারিশ করেছে করোনাসংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি।

 

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) কমিটির সভাপতি অধ্যাপক মোহাম্মদ সহিদুল্লার সই করা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়েছে। আগের দিন বুধবার রাতে কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

 

কমিটির সুপারিশ ইতিমধ্যে স্বাস্থ‌্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে।

 

কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ সহিদুল্লা আমা‌দের ( সাংবা‌দিক ) কে জানান, শাটডাউন মানে জরুরি সেবা ছাড়া সবকিছুই বন্ধ রাখার কথা বোঝানো হয়েছে।

 

দেশে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলায় চলতি বছর প্রথমে ৫ এপ্রিল থেকে ৭ দিনের জন্য গণপরিবহন চলাচলসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিধিনিষেধ আরোপ করে সরকার। পরে তা আরও ২ দিন বাড়ানো হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আসায় ১৪ থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত আরও কঠোর বিধিনিষেধ দিয়ে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ শুরু হয়। পরে তা আরও ৮ দফা বাড়িয়ে ১৫ জুলাই পর্যন্ত করা হয়।

 

এর পাশাপাশি স্থানীয় পর্যায়েও বিভিন্ন এলাকায় কঠোর বিধিনিষেধ চলছে। এই বিধিনিষেধ চলছে সারাদেশে। তারমধ্যে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ঢাকার আশপাশের সাতটি জেলায় কঠোর লকডাউন দেয়া হয়। যাতে রাজধানী ঢাকাকে বিচ্ছিন্ন করা যায়। এ অবস্থার মধ্যে করোনাসংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি সারাদেশ সম্পূর্ণ শাটডাউনের সুপারিশ করেছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.