২৪ ঘন্টাই খবর

ভোলার বোরহানউদ্দিন ও তজুমদ্দিনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জরুরি সভা

বিশেষ প্রতিনিধি, ভোলা জেলা :

আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২০২১ উপলক্ষে ভোলার বোরহানউদ্দিন ও তজুমদ্দিনে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভোলা জেলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার এবং ভোলা জেলা প্রশাসক তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরীর নির্দেশনা প্রশাসন কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তারই ধারাবাহিকতায় আজ  তজুমদ্দিনে সরজমিনে বিভিন্ন কেন্দ্র পরিদর্শন করেন ভোলা জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) আবুল কালাম আজাদ।

পরিদর্শন শেষে তিনি জনগণকে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের আশ্বাস দেন এবং কোনরকম অনিয়ম মেনে নেওয়া হবে না বলে কঠোর হুঁশিয়ারি বার্তাপ্রধান করে। এদিকে ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ২০২১ উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর আলোচনা ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায়  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ  সাইফুর রহমান  বলেন আপনারা চান সুন্দর একটি নির্বাচন ,আমরাও চাই সুন্দর একটি নির্বাচনী পরিবেশ উপহার দিতে। কেউ হেরে যাবে ,কে জিতবে এটাই নির্বাচনের নিয়ম কিন্তু কেউ জোর করে কারো ভোট অধিকার হরণ করে ভোটে জিততে পারবে না কথা দিলাম। যেকোনো মূল্যে আগামী ২১ জুন  অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য ভাবে করা হবে।

একটি স্বচ্ছ,সুন্দর ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন উপহার দেওয়ার জন্য প্রশাসন  প্রস্তুত রয়েছে । আজ বৃহস্পতিবার ১৭ই জুন বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হলরুমে আসন্ন গঙ্গাপুর ও  সাচড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণকারী প্রার্থীদের উপস্থিতিতে এসব কথা বলেন। মিটিং অংশগ্রহণকারী প্রার্থী মহিউদ্দিন আজিম, হাফেজ শহীদ, বাবলু, বশির, জানায় প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী গন কেন্দ্র দলসহ তাদেরকে নানা হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন।বহিরাগত লোকজন দিয়ে প্রভাব বিস্তার করানোর অভিযোগ তোলা হয়।

গঙ্গাপুর ২ নং ওয়ার্ডের প্রার্থী শাহজাহান ও রিনা আকন্দ  অভিযোগ করেন , প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ফাকরুল আলম জুয়েল নির্বাচনী  কার্যক্রমে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি সহ না রকম হুমকি প্রদান করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার( লালমোহন সার্কেল) রাসেলুর  রহমান বলেন, আপনারা নিশ্চিত থাকবেন কোন পেশি শক্তি কিংবা কোনো ভাই নির্বাচনে প্রভাব বিস্তার করতে পারবেন না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থানে থাকবেন। অনাকাঙ্ক্ষিত কোন পরিস্থিতি কঠোর হস্তে নিয়ন্ত্রণ করা হবে।

তিনি বলেন জনগণ নিজের ভোট নিজে দিতে পারবে, এতে কেউ হস্তক্ষেপ করলে প্রশাসন কঠোরভাবে দমন করবে । কোন স্বজনপ্রীতি বা রাজনৈতিক ইস্যু গ্রহণযোগ্য হবে না দল-মত নির্বিশেষে সকল ধরনের মানুষ স্বাধীনভাবে তাদের ভোট প্রয়োগ করতে পারবে। বাংলাদেশ পুলিশ সহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মাঠে প্রস্তুত থাকবে।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, ভাইস চেয়ারম্যান রাসেল আহমেদ মিয়া, অফিসার ইনচার্জ মাজহারুল আমিন। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সহকারী কমিশনার ভূমি সহকারী কমিশনার ভূমি শোয়াইব আহমাদ,উপজেলা প্রকৌশলী শ্যামল কুমার গাইন,ও   ইউনিয়ন বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গন,স্থানীয় সংবাদ কর্মী বৃন্দ।

Leave A Reply

Your email address will not be published.