২৪ ঘন্টাই খবর

কুলিয়ারচরে এক সংখ্যালঘু পরিবারের সাড়ে ৫ বছরের শিশু যৌন নিপীড়নের শিকার।

কুলিয়ারচরে এক সংখ্যালঘু পরিবারের সাড়ে ৫ বছরের শিশু যৌন নিপীড়নের শিকার

মুহাম্মদ কাইসার হামিদ, কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ

 

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে এক সংখ্যালঘু পরিবারের সাড়ে ৫ বছরের শিশু স্থানীয় নাপিতেরচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ুয়া শিশু শ্রেণির ছাত্রী যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

 

শিশুটি গত বুধবার (২জুন) বিকাল ৪ টার দিকে উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নের নাপিতেরচর গ্রামে আশরাফুল (১৯) নামে এক মুসলিম যুবক কর্তৃক এ যৌন নিপীড়নের শিকার হয় । লম্পট আশরাফুল শিশুটির পার্শ্ববর্তী বাড়ির শহীদুল্লাহর ছেলে বলে জানা যায়।

 

এ ঘটনায় শিশুটির মা বাদী হয়ে লম্পট আশরাফুলের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার (৩জুন) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে কুলিয়ারচর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।

 

শিশুর বাবা (৩৭) এ প্রতিনিধিকে জানান, গত বুধবার (২জুন) বিকাল ৪ টার দিকে তার সাড়ে ৫ বছর বয়সের শিশু কন্যাকে ঘুড়ি দেখানোর নাম করে পার্শ্ববর্তী বাড়ির শহীদুল্লাহর ছেলে লম্পট আশরাফুল (১৯) তার ঘরে ডেকে নিয়ে ওই শিশুটির পড়নের হাফপ্যান্ট খুলে শিশুর যৌনাঙ্গে আঙ্গুল ঢুকিয়ে যৌন নিপীড়ন করে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এসময় শিশুটির ডাক চিৎকার করতে থাকলে শিশুটিকে হাফপ্যান্ট পড়িয়ে তাকে ছেড়ে দেয়। এঘটনার পর শিশুটি কাঁদতে কাঁদতে মা’র কাছে গিয়ে ঘটনাটি খুলে বলে। এর আগেও লম্পট আশরাফুল ওই শিশুটিরকে যৌন নিপীড়ন করেছিলো বলে জানান শিশুটির বাবা। বিষয়টি স্থানীয় ফরিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহ আলম সহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের জানালে তারা শিশুটির বাবাকে থানায় গিয়ে অভিযোগ করতে পরামর্শ দেন।

 

শিশুটি বলে, আশরাফুল তাকে ঘুড়ি দেখানোর কথা বলে ঘরে ডেকে নিয়ে তার হাফপ্যান্ট খুলে প্রস্রাবের জায়গায় আঙ্গুল ঢুকিয়ে নাড়া দেয়। এবং হুমকি দিয়ে বলে, একথা কাউকে বললে আমাকে মারধোর করবে।

 

এব্যাপারে ফরিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহ্ আলম বলেন, বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে শিশুটির বাবা তার নিকট গেলে তিনি তাকে থানায় অভিযোগ করতে পরামর্শ দেন।

 

ঘটনা সম্পর্কে জানতে অভিযুক্ত আশরাফুলের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

 

এব্যাপারে কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি এ.কে.এম সুলতান মাহমুদ বলেন, এ ঘটনায় কুলিয়ারচর থানায় মামলার পক্রিয়াধীন। এরিপোর্ট লিখা পর্যন্ত মামলার প্রস্তুতি চলছিলো।

Leave A Reply

Your email address will not be published.