২৪ ঘন্টাই খবর

দৌলতপুরে ঢোল বাজিয়ে নেচে গেয়ে মুসলিম কিশোরের লাশ দাফন!

রাসেল আহম্মেদ, কুষ্টিয়া :
কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে স্থানীয় এমপি’র বাড়ির পাশে মুসলিম রীতি না মেনে ঢোল বাজিয়ে নেচে গেয়ে মো. রাব্বি হোসেন (১৭) নামে এক কিশোরের লাশ দাফন করেছে ভণ্ড ফকির শামীম রেজা। গত রোববার রাতে উপজেলার ফিলিপনগর ইউনিয়নের পশ্চিম-দক্ষিণ ফিলিপনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে দৌলতপুরসহ সর্বত্র সমালোচনার ঝড় বইছে।
স্থানীয়রা জানান, বেশ কিছুদিন ধরে ব্লাড ক্যান্সারে ভুগছিল পশ্চিম-দক্ষিণ ফিলিপনগর গ্রামের মহসিন আলীর ছেলে মো. রাব্বি হোসেন। বাবার সঙ্গে রাব্বি রাজধানীর ফুটপাথে হকারি করতো। সে অসুস্থ হয়ে পড়লে ঈদের আগে গ্রামের বাড়িতে চলে আসেন তারা। গত রোববার বিকালে নিজ বাড়িতে রাব্বি’র মৃত্যু হলে পিতা মহাসিন আলী তার ছেলের মরদেহ একই এলাকার ভণ্ড ফকির শামীম রেজার হাতে তুলে দেয়। পরে ফকির শামীম রেজার অনুসারীরা মুসলিম ধর্মীয় রীতি না মেনে ঢোল বাজিয়ে নেচে-গেয়ে রাব্বির মরদেহ শামীম রেজার আস্তানার পাশে সমাহিত করে।
এ বিষয়ে কুষ্টিয়া-১ দৌলতপুর আসনের এমপি সরওয়ার জাহান বাদশা জানিয়েছেন, ঘটনাটি আমার পাড়ায় ঘটেছে। আমি জানাজায় অংশ নিয়েছি, শরীরটা অসুস্থ থাকায় দাফনে অংশ নিতে পারিনি। পরে শুনেছি তারা ঢাক-ঢোল পিটিয়ে ওই মৃত ছেলেটির লাশ দাফন করেছে। এমন ঘটনা ঘটানোর বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।
এদিকে ঢোল বাজিয়ে নেচে গেয়ে মুসলিম ওই কিশোরের দাফনের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে দৌলতপুরসহ সর্বত্র আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। এ কর্মকাণ্ডে জড়িত ভণ্ড ফকির শামীম রেজার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন এলাকাবাসী।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভণ্ড ফকির শামীম রেজা ফকির গোলাম-এ বাবা কালান্দার জাহাঙ্গীর সুরেশ্বরীর অনুসারী। নিজ বাড়িতে তার একটি আস্তানাও রয়েছে। ভক্ত অনুসারীদের নিয়ে তিনি সেখানেই সময় কাটান। গোলাম-এ বাবা কালান্দার জাহাঙ্গীর সুরেশ্বরী অনুসারীদের কেউ মারা গেলে নেচে গেয়ে তার মরদেহ দাফন করা হয়।
ইসলাম ধর্ম রীতি বিরোধী কর্মকাণ্ডের বিষয়ে দৌলতপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শারমিন আক্তার বলেন, বিষয়টি দৌলতপুর থানার ওসিকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হলে তিনি ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.