২৪ ঘন্টাই খবর

নেত্রকোনায় পৃথক স্থানে বজ্রপাতে ৭ জননিহত, আহত ৬

গজনবী বিপ্লব :

নেত্রকোনায়পৃথক স্থানে বজ্রপাতে ৭ জন নিহত হয়েছে। এসময় আহত হয়েছে ৭ জন। আহতদের স্থানীয় হাসপাতালেভর্তি করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বিকালে এই নিহতের ঘটনাটি ঘটেছে।নেত্রকোনা জেলাপ্রশাসক কাজী আব্দুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নিহতরাহচ্ছে, মদন উপজেলার ফতেপুর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদিরের ছেলে হাফেজ মো: শরীফ (১৮), মুছামিয়ার ছেলে হাফেজ রবিন (১৭)।খালিয়াজুরীউপজেলার জগন্নাথপুর গ্রামের ওসেফ মিয়া (৬৫), বিপুল মিয়া (৩২) এবং বাতুয়াইল গ্রামে একজনেরপরিচয় জানা যায়নি। কেন্দুয়াউপজেলার কুন্ডুলী গ্রামেরমৃত তৈয়ব আলীর ছেলে কৃষক ফজলু মিয়া (৫৫) ও পাইকুড়া ইউনিয়নেরবৈরাটী গ্রামের আহসান খানের ছেলে বাচ্ছু খান।পুলিশও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুরঅনুমান ২টার দিকে কেন্দুয়া উপজেলার ফজলুমিয়া বাড়ির পাশেই সব্জি ক্ষেতে কাজ করছিলেন। এসময় বজ্রসহ বৃষ্টি নামে। হঠাৎ বজ্রপাতে মরাত্মকভাবে আহত হন তিনি। খবরপেয়ে স্বজনরা ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে কেন্দুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন। অপরদিকে একই উপজেলার পাইকুড়া ইউনিয়নের বৈরাটী গ্রামের আহসান খানের ছেলে বাচ্ছু খান (৪৫) বৈরাটী আশ্রমের পাশের মাঠে কাজ করছিলেন। হঠাৎ বজ্রসহ বৃষ্টি নামলে বজ্রপাতে তিনিও আহত হন। তাকেও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষনা করেন। এদিকেমদন উপজেলার ফতেপুর ইউনিয়নের ফতেপুর গ্রামের দুপুরে বাড়ীর অদুরে একটি মাঠে ফুটবল খেলারসময় দুইজন নিহত হয়। এসময় তিনজন আহত হয়েছে। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে মদন উপজেলাস্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এছাড়াওখালিয়াজুরী উপজেলার মেন্দিপুর ইউনিয়নের জগন্নাথপুরের একটি হাওরে মাছ ধরার সময় দুইজননিহত হয়। এসময় আরো তিনজন আহত হয়েছে। তাদের উদ্ধার করে মদন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেভর্তি করা হয়েছে। জেলাপ্রশাসক কাজী আব্দুর রহমান আরো জানান, ‘বজ্রপাতে ৭ জন নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। প্রত্যেকেরপরিবারকে ১০ হাজার করে টাকা প্রদান করার জন্য স্ব স্ব উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাদরনির্দেশ দেয়া হয়েছে।’

Leave A Reply

Your email address will not be published.