২৪ ঘন্টাই খবর

গোবিন্দগঞ্জে পৃথক দুটি স্থান থেকে ফেন্সিডিল উদ্ধার, আটক-১

জিল্লুর রহমান রানা, গোবিন্দগঞ্জ, গাইবান্ধা প্রতিনিধি :
গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে খলসি গ্রামের একটি বাড়িতে ও মায়ামনি হোটেলের সামনে থেকে একটি বাসে তল্লাশি চালিয়ে ফেন্সিডিলসহ একজনকে আটক করেছে গোবিন্দগঞ্জ থানা পুলিশ। শুক্রবার (৩০শে এপ্রিল) রাত সাড়ে ১০টার দিকে থানা চারমাথা মোড় থেকে ঢাকাগামী পলাশবাড়ী এক্সপ্রেসে তল্লাশি চালিয়ে ১০০শ বোতল ফেন্সিডিলসহ ১জনকে আটক করে এবং এর আগে রাত ৯টা ৪০ মিনিটে থানা-খলসী গ্রামের একটি বাড়ি থেকে ৫৪ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়।
থানা ও প্রত্যক্ষদর্শীসূত্রে জানা যায়, “গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গোবিন্দগঞ্জ থানা চৌকস পুলিশবাহিনী ঢাকাগামী পলাশবাড়ী এক্সপ্রেসে তল্লাশি চালায়। এসময় ১০০ বোতল ফেন্সিডিলসহ একজনকে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।” উদ্ধারকৃত আসামীর বাড়ি ময়মনিসংহ জেলার ত্রিশাল উপজেলা বৈল হিন্দুপাড়া গ্রামে। আসামীর নাম মোঃ সাজু মিয়া (২৫), পিতাঃ ইসাহাক মিয়া।
অপরদিকে, এসআই আখতার, এসআই আমিনুল ইসলাম, এ.এসআই মুশফিকুর রহমান, এ.এসআই মাসুদ রানা, জাহিরুল ইসলাম ও মুমিনুলদের সমন্বয়ে একটি টিম থানা-খলশি নামক গ্রামে অভিযান চালায়। এসময় ওই গ্রামের আলাউদ্দিনের ছেলে রাসেল মিয়া (৩৮) নামের এক মাদক ব্যবসায়ীর বসতবাড়ির পেছনে বিশেষ কায়দায় স্কুলব্যাগে মাটিতে পুঁতে রাখা ৫৪ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। তবে মাদক ব্যবসায়ী মোঃ রাসেল মিয়া এখনো পলাতক রয়েছে।
এ ব্যাপারে গোবিন্দগঞ্জ থানার ইনচার্জ অফিসার একেএম মেহেদী হাসান জানান, “উদ্ধারকৃত মোট ১৫৪ পিস বোতল ফেন্সিডিলের আনুমানিক মূল্যঃ ১ লাখ ৮ হাজার টাকা। উভয় ঘটনায় পৃথক ভাবে আসামীদের বিরুদ্ধে আলাদা দুটি মাদক মামলা রুজুর প্রক্রিয়া চলছে।”
এ সম্পর্কে নবাগত ওসি তদন্ত মোঃ তাজুল ইসলাম তাৎক্ষণিকভাবে নিশ্চিত হয়ে বলেন যে, “উদ্ধারকৃত ফেন্সিডিলগুলো কোথায় পৌঁছাতো এবং এর সাথে অন্য মহলের সাথে সম্পৃকতা আছে কি না? সে বিষয়ে তিনি যাচাই করে মামলাটি অনেক দক্ষার সাথে তদাকরি কার্যক্রম চলমান রেখেছেন  এবং পলাতক অপর আসামী রাসেলকে দ্রুত আইনের আওতায় আনার তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি জানান।”

Leave A Reply

Your email address will not be published.