২৪ ঘন্টাই খবর

হাসপাতালের আইসিইউ তে অসুস্থ বাবা ; অশ্রুসিক্ত চোখে সন্তান মধ্য রাতে মানবতার সেবায়

নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রায় ১২শ কোটি শুক্রাণু কে পেছনে ফেলেই তো পৃথিবীতে এসেছে এক এক জন মানব সন্তান। সবাই কি হয়েছে বিশেষ আকাশের সুখ তারার মতো? তবে সব তারা ই কি লিটন উদ্দীন সরকারের মতোই ধ্রুব হয়ে জ্বল জ্বল করে জ্বলে উঠে মহাআকাশে? এ যেনো বিধাতার দেয়া নিখাঁদ স্বার্থহীন প্রেম।

মাদার তেরেসার মতো মানবতার ফেরিওয়ালা কি প্রতিদিন জন্মায়? একজন মাদার তেরেসার মতো মানবতার ফেরিওয়ালা প্রতিদিন জন্মায় না। এ যেনো কাব্য কথাকে ও হার মানিয়েছে। রুপ কথার গল্পের মতোই হয়েছে সুন্দরতম। অসুস্থ বাবা কে হাসপাতালে রেখে ছুটেছেন অনাহারী মানুষের মাঝে। দিন রাত ঝড় বৃষ্টি সব কিছুই হেরেছে মানবতার উদাহরণ যুবলীগ নেতা লিটন সরকার এর কাছে। ভয়ংকর মহামারী করোনায় যখন সাধারণ মানুষ না খেয়ে মৃত্যুর পথে মানবতার ফেরিওয়ালা তখন তাদের পাশে।

কখনও মাস্ক নিয়ে ছুটেছে রিক্সা চালকদের দাড়ে দাড়ে আবার কখনও ছুটেছে নৃত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী নিয়ে অসহায় মানুষের ঘড়ে ঘড়ে। সিয়াম সাধনার মাস রমজানেও মানবতার পাশে থেকেছে এই মানবিক নেতা। মধ্য রাতে ছিন্নমূল মানুষ কে সেহেরি আর সন্ধ্যায় ইফতারি। রাতেও বন্ধ করেন নি অনাহারী কে খাবার দেওয়া। টঙ্গীর অসহায় মানুষের মধ্যে যেই প্রেম জাগ্রত হয়েছে সেই প্রেমের মহামানবের নাম লিটন উদ্দীন সরকার। কর্মহীন মানুষ পেয়েছে পেটপুরে খাবার, যুবলীগ পেয়েছে মানবতার সমুদ্র। জসিমউদ্দীন এর সেই কবিতার মানবিক বালক লিটন সরকার, “সবার সুখে হাসবো আমি কাঁদবো সবার দুঃখে নিজের খাবার বিলেয়ে দিবো অনাহারীর মুখে”

Leave A Reply

Your email address will not be published.