২৪ ঘন্টাই খবর

ঘুরে দাড়িয়েছে দেশের একমাত্র মহিষ প্রজনন ও উন্নয়ন খামার

বি এম রাকিব হাসান, খুলনা ব্যুরোঃ-

ঘুরে দাড়াচ্ছে বাগেরহাটে দেশের একমাত্র মহিষ প্রজনন ও উন্নয়ন খামারটি। নানা প্রতিকুলতার মধ্যদিয়েও সরকারের বিশেষ নজরদারিতে ক্রমান্বয়ে সম্প্রসারিত হচ্ছে এই খামারটি। গবাদী পশূ পালন বৃদ্ধি ও পর্যাপ্ত মাংশ এবং দুধের চাহিদা মেটাতে প্রতিবছর এ খামার থেকে দেশের বিভিন্ন জেলায় শংকর জাতের বকনা ও ষাড় ভতূর্কী মূল্যে বিতরণ করছে সরকার। দক্ষিনাঞ্চলের উপকুলীয় এলাকায় জলবাযু পরিবর্তনের সাথে তালমিলিয়ে শংকর জাতের এই মহিষের খামারটি বিস্তার লাভ করছে।

বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা দ্বীপাঞ্চল, চরাঞ্চল ও উপকূলবর্তী জেলা চরসমূহে উন্নত জাতের ষাঁড় মহিষ প্রদান করে মহিষ জাতের উন্নয়ন করাই খামারের মূল উদ্দেশ্য।

সরেজমিনে জানা যায়, বাগেরহাট জেলার ফকিরহাটে পিলজংগ ও বেরবাড়ি গ্রামের মধ্যস্থলে ১৯৮৪-৮৫ অর্থ বছরে এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংকের আর্থিক সহায়তায় ৮০ একর জমির ওপর মহিষ প্রজনন ও উন্নয়ন খামার স্থাপিত হয়। বর্তমানে খামারের জমির পরিমান ৯৪ দশমিক ৭৯ একর। বর্তমানে এ প্রতিষ্ঠানে মহিষের সংখ্য ৪২৮টি এবং ৩৫ টি গাভী থেকে প্রতিদিন ১৭৭ লিটার দুধ উৎপাদন হয়। বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা দ্বীপাঞ্চল, চরাঞ্চল ও উপকূলবর্তী জেলা চরসমূহে উন্নত জাতের ষাঁড় মহিষ প্রদান করে মহিষ জাতের উন্নয়ন করাই খামারের মূল উদ্দেশ্য।

মহিষ প্রজনন ও উন্নয়ন খামারের সিনিয়র সহকারী পরিচালক ডাঃ মোঃ শরিফুল ইসলাম বলেন,মহিষ প্রজনন ও উন্নয়ন খামারের সিনিয়র সহকারী পরিচালক ডাঃ মোঃ শরিফুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে এখানে প্রায় ৯৫একর জমি, ১২ টি সেড ও ৪২৮টি মহিষ আছে।

মহিষগুলোর সাস্থ্য অনেক খারাপ ছিল, আমি যোগদানের পর থেকে পর্যাপ্ত সবুজ ঘাস, দানা দার খাবার এবং নিয়মিত মহিষগুলো মাঠে ছাড়া হয়, নিয়মিত গোসল করানো হয় এটার ফলে বর্তমানে মহিষের সাস্থ্য অনেক ভাল হয়েছে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.