২৪ ঘন্টাই খবর

কুলিয়ারচরে লকডাউনকে কেন্দ্র করে এক সংবাদিকে মারধোরের অভিযোগ। সংবাদ ৫২, ২৪ ঘন্টা খবর


কুলিয়ারচরে লকডাউনকে কেন্দ্র করে এক সংবাদিকে মারধোরের অভিযো

 

মুছাম্মৎ রোকেয়া আক্তার, কুলিয়ারচর প্রতিনিধিঃ

 

কোভিড-১৯ কোরোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে লকডাউন মানাতে সারাদেশে সর্বাত্মক লকডাউনের প্রথম দিন বুধবার ১৪ এপ্রিল সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত সরকারের নির্দেশ অনুযায়ী কিশোরগঞ্জ কুলিয়ারচরে পুলিশের অবস্থান ছিলো লক্ষণীয়।

 

উপজেলার বাহিরের লোকজন উপজেলার ভিতরে ও উপজেলার ভিতরের লোকজন উপজেলার বাহিরে যেতে প্রতিটি প্রবেশ পথে পুলিশের নজর এরিয়ে আসা যাওয়া করতে পারেনি জনসাধারণ ও যানবাহন।

 

জানা যায়, লগডাউন চলাকালে কুলিয়ারচর-বেলাব রাস্তার ফরিদপুর নাপিতেরচর ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় কুলিয়ারচর থানার কর্তব্যরত এএসআই মো. জুয়েল মিয়, কনস্টেবল তারেক শুভ ও একরামুল সহ স্থানীয় গ্রাম পুলিশ লিটন চন্দ্র বিশ্বাস রাস্তায় বাঁশ দিয়ে ব্যারিয়ার তৈয়ারি করে দায়িত্ব পালন করে আসছিলো। দুপুরের দিকে স্থানীয় ফরিদপুর ইউনিয়ন পরিষদের ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা সদস্য মোছাম্মৎ নার্গিস বেগমের স্বামী মো. ফুল মিয়া (৪৫) লকডাউন অমান্যকরে ভ্যানগাড়ি নিয়ে পার্শ্ববর্তী নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলার দিকে যাইতে চাইলে অন্যান্যদের মতো তাকেও পুলিশ বাধাঁ দিয়ে আটকিয়ে রাখে। পরে সবাইকে একসাথে ছেড়ে দেয়। লকডাউনের বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিক মো. সবুজ মিয়া ভিডিও লাইভ করে ও ছবি তোলে।

 

ঘটনার পর ওইদিন বুধবার (১৪এপ্রিল) রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্থানীয় নাপিতেরচর বাজারের ইউসুফ মার্কেট সংলগ্ন জালালের দোকানে গ্রাম পুলিশ লিটন চন্দ্র বিশ্বাসকে একা পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই ইউপি সদস্যের স্বামী মো. ফুল মিয়া তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে বলে, আমি যে মহিলা মেম্বারের স্বামী পুলিশের কাছে এ পরিচয় দেছনি কেন? তোদেরকে কে বলেছে রাস্তায় বাঁশ বেধেঁ লকডাউন করতে? এ সময় পুলিশ ও স্থানীয় চেয়ারম্যানকে উদ্দেশ্য করে গালিগালাজ করে সে। এমন সময় অনলাইন নিউজ পোর্টাল সংবাদকণ্ঠ ডটকম প্রতিনিধি ও আমরা সত্যের পথে পেইজের এডমিন মো. সবুজ মিয়াকে দেখতে পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে বলে তোরা মিলে বাঁশ বেঁধে লকডাউন দিয়ে আমাকে আটক করে অপমান করেছিস এবং আমার ভিডিও ও ছবি তুলেছিস। এসব কথা বলিয়া প্রকাশ্যে সাংবাদিক সবুজ মিয়াকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে হত্যার উদ্দেশ্যে তার উপর হামলা করে মারধোর করে। হামলার সময় ওই সাংবাদিককে ফুল মিয়ার ছোট ভাই সিদ্দিক মিয়াও মারধোর করে।

 

এ ঘটনায় বুধবার রাত ১১টার দিকে সাংবাদিক মো. সবুজ মিয়া বাদী হয়ে কুলিয়ারচর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।

 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মো. ফুল মিয়ার সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তার সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

 

এব্যাপারে ফরিদপুর বিটের দায়িত্বরত অফিসার এসআই মো. নয়ন মিয়া জানান, বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

Leave A Reply

Your email address will not be published.