২৪ ঘন্টাই খবর

কুলিয়ারচরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ছবি তোলায় এক সাংবাদিকের মোবাইল কেঁড়ে নেয় ইউএনও

কুলিয়ারচরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ছবি তোলায় এক সাংবাদিকের মোবাইল কেঁড়ে নেয় ইউএন

 

কিশোরগঞ্জ জেলা প্রতিনিধিঃ

 

কোভিড-১৯ করোনা প্রতিরোধে সরকারের ১৮ দফা নির্দেশনার অংশ হিসেবে স্বাস্থ্যবিধি মেনেচলার জন্য মাস্ক পরিধানে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে বুধবার (৩১ মার্চ) বিকালে কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলা পরিষদের প্রথম গেইটের সামনে কুলিয়ারচর বাজার-জামতলী রাস্তায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রুবাইয়াৎ ফেরদৌসীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালে মাস্ক বিহীন পথচারীদের জরিমানা করা হয়।

 

ভ্রাম্যমাণ আদালতে মাস্ক পড়া বিহীন পথচারীদের জড়িমানা করছে এমন সংবাদ পেয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে জনস্বার্থে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিষয়টি গণমাধ্যমে প্রচারের উদ্দেশ্যে উপজেলা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মুহাম্মাদ কাইসার হামিদ ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আরীফুল ইসলাম ঘটনা স্থলে আসেন এবং ভ্রাম্যামাণ আদালতে জরিমানা করছেন এমন কয়েকটি ছবি তোলেন। বিষয়টি ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নজরে আসলে তিনি দ্রুত গতিতে সাংবাদিক মুহাম্মদ কাইসার হামিদ ও সাংবাদিক মোহাম্মদ আরীফুল ইসলামের নিকট এসে মুহাম্মদ কাইসার হামিদের হাত থেকে মোবাইল ফোনটি কেড়ে নিয়ে মানষিক টর্চার করতে থাকে। এ সময় ইউএনও সিনিয়র সাংবাদিক কাইসার হামিদকে লাঞ্চিত করে বার বার বলতে থাকে কার অনুমতিতে ভিডিও করেছেন এবং ছবি তুলেছেন? এই বলে মোবাইল ফোন থেকে ছবিগুলো কেটে দিয়ে বেশ কিছুক্ষণ পর মোবাইল ফোনটি ফেরৎ দেন।

 

সাংবাদিক মুহাম্মদ কাইসার হামিদ বলেন, ইউএনও স্যার কি কারণে ও কোন ভয়ে তার সাথে এমন আচরণ করেছে তিনি তা বুঝতে পারেননি। তবে তিনি ধারণা করছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত চলাকালে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও নির্বাহী কর্মকর্তা মাস্ক বিহীন পথচারী ও ভ্রাম্যমাণ আদালত পর্যবেক্ষণকারীদের সাথে স্বজনপ্রীতি করছে এমন ছবি সাংবাদিক মুহাম্মদ কাইসার হামিদ এর মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় বন্ধি হয়েছে। তার গোপন ক্যামারায় তোলা কয়েকটি ছবিতে দেখা যায়, ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানার দৃশ্য যারা দাঁড়িয়ে দেখছেন তাদের অনেকের মুখে মাস্ক পড়া নেই। তাদের কাউকে জরিমানা না করে মাস্ক বিহীন কিছু পথচারীকে জরিমানা করছে অন্যদের ছেড়ে দিচ্ছেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.