২৪ ঘন্টাই খবর

বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক যুবলীগ নেতা নৌকার কান্ডারী এস এম রাজু

কামরুল হাসান রনি : বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের সৈনিক এবং তরুণ প্রজন্মের বাতিঘর এস এম রাজু। তিনি খুলনা মহানগরে স-গৌরবের আসনে সমাসীন। তিনি নৈতিক গুণসম্পন্ন দক্ষ সাংগঠনিক শক্তির অধিকারী, ব্যক্তিত্বসম্পন্ন একজন আওয়ামী যুবলীগের নিবেদিত প্রাণ। তিনি তাঁর রাজনৈতিক কর্মতৎপরতা, প্রগতিশীল চিন্তাভাবনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারণকারী। সৃষ্টিশীল কাজে উদ্যোগী, অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষহীন, ক্রীড়া সংগঠক এবং সামাজিক ন্যায়পরায়ন ব্যক্তি হিসেবে আজকের এই সময়ের একজন যোগ্য রাজনৈতিক নেতার উদাহরণ। তাঁর নেতৃত্বদানের ক্ষমতা, নেতৃত্বের গুনাবলী, সৎচ্চরিত্রাবলী এবং রাজনৈতিক জীবনের বিশাল কর্মযজ্ঞই প্রমাণিত করে তিনি রাজনৈতিক মাঠের একজন কর্মদক্ষ কর্মী এবং আওয়ামী যুবলীগের প্রাণ। ছাত্রাবস্থা থেকেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবনের আদর্শকে লালন করে তিনি তাঁর রাজনৈতিক জীবন গড়েছেন। তিনি জামাত-বিএনপির জেল জুলুম অত্যাচারকে সহ্য করে প্রেত্মাতাদেরকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আজকে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির ৫ নং সদস্য। বাগেরহাট ৪ আসনে উপ নির্বাচন করা সহ জনপ্রতিনিধি হিসেবে বার বার নির্বাচন করেছেন জনকল্যাণের কথা চিন্তা করে কিন্ত দূরদৃষ্টি সম্পন্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা তাকে বলেছেন প্রবীনদের সুযোগ করে দেওয়ার জন্য তিনি তাই করেছেন। কারণ এস এম রাজু মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অত্যন্ত অনুগত। এস এম রাজু নৈতিক গুনাবলীতে অসাধারণ। তাঁর এই নৈতিক গুনাবলীর জন্যই আজকের রাজনীতির মাঠে তিনি একজন জননন্দিত, জনপ্রিয়, জননেতা। হিসেবে সকলের নিকট পরিচিত। জনপ্রিয়তা থাকার পরও তিনি কখনো ক্ষমতার অপব্যবহার করেননি। তার এই জনপ্রিয়তায় ইর্ষানীত হয়ে একটি কুচক্রী মহল ইতিমধ্য এস এম রাজুর জনপ্রিয়তা খর্ব করার উদ্দেশ্য বিভিন্ন প্রকার অপপ্রচার চালতে উঠেপড়ে লেগেছে। নিন্দুকের দল বিভিন্ন মিডিয়া পত্র পত্রিকায় মিথ্যা ভুয়া বানোয়াট উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে অপপ্রচার করে হেয় পতিপন্ন করবার পায়তারায় লিপ্ত হয়েছে। যার ভিতরে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ চেতনা বাস্তবায়নের ইচ্ছা তাকে কেউ কোনদিন ঘৃণ্য বর্বরোচিত করতে পারবে না। সে যেকোনো জায়গার আওয়ামীলীগ নেতাকর্মী এবং সাধারণ নাগরিক যেকোন ধরনের সহযোগীতার জন্য তাঁর নিকট স্মরনাপন্ন হলে তিনি তাদেরকে শূন্য ফিরিয়ে দেননি। তিনি প্রসার করে দেন তাঁর সহযোগিতার হাত। তাঁর এই গুণাবলীর জন্য এই খুলনা শরনখোলার বা উপজেলা, মহানগরের প্রতিটি ওয়ার্ড, এলাকার বাসিন্দার নিকট আজ এস এম রাজু। একজন মানবতাবাদী নেতা হিসেবে পরিচিত। তিনি তরুণ প্রজন্মকে গুরুত্ব দিয়ে খুলনায় জনপ্রিয় করেছেন ফুটবল,ব্যাডমিন্টন, ঘুড়ি উৎসবসহ নানা ধরণের উৎসব তিনি করে যাচ্ছেন। তিনি বিশ্বাস করেন তরুণ প্রজন্ম জাতির ভবিষ্যৎ। আগামীর বাংলাদেশের অত্যন্ত প্রহরী এই তরুণ প্রজন্মকে মাদকাসক্ত, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাসবাদ থেকে ফিরিয়ে রাখতে পারলে পথ হারাবে না বাংলাদেশ। এস এম রাজু সারা বছর বিভিন্ন খেলাধুলায় মাতিয়ে রাখেন খুলনা মহানগরবাসীকে। ক্রিড়া ও সংস্কৃতিতে উজ্জীবিত করেন তরুণ প্রজন্মকে। তিনি দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে কখনো দল এবং দলের নেতাকর্মীর সাথে বিশ্বাস ভঙ্গ করেননি। তাঁর পরিবারের প্রতিটি সদস্যের এবং তাঁর দেহের রক্তে মাংসে ষোলআনা আওয়ামীলীগ বিরাজমান। খুলনার কোনো নেতা এমনকি তাঁর রাজনৈতিক চরম বিরোধী শক্তিও বলতে পারবে না, তিনি কখনও ওয়াদা ভঙ্গ করেছেন। তিনি নগরের এ প্রান্ত থেকে ঐ প্রান্তে আওয়ামীলীগের মিছিল মিটিং এবং বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে নগরের উন্নয়ন কর্মকান্ডে এবং আওয়ামীলীগ যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্চাসেবকলীগকে সুসংগঠিত করতে ভোর থেকেই ছুটে বেড়ান। রাজনীতিতে তাঁর এই কর্মদক্ষতার নেতৃত্ব এই সময়ের আওয়ামীলীগের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তিনি স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, বিএনপি-জামায়াত বিরোধী আন্দোলন এবং ১/১১ এর রাজনীতির চরম দুঃসময়ে ছিলেন অগ্রসৈনিক। স্বৈরাচার, জামায়াত-বিএনপি এবং ১/১১ এর সময়ে এস এম রাজু জেল জুলুম নির্যাতন সহ্য করে আজকের এস এম রাজু হয়েছেন। তিনি যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে ২০০৪ সালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে একুশে গ্রেনেড হামলা চলাকালীন সময়ে তাৎক্ষণিক নিজের জীবনকে বাজি রেখে মানব প্রাচীর তৈরী করে রক্ষা করেছেন শতশত জীবন।এস এম রাজু একজন অসাম্প্রদায়িক নেতা। হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ খ্রিষ্টান সবার জন্য তাঁর দরজা সব সময় উন্মুক্ত। তিনি খুলনা মহানগর তথা সিটি কর্পোরেশন এবং জেলার প্রতিটি উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন এবং বিভিন্ন ইউনিটে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে এবং আওয়ামীলীগ সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশনকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি একটি শক্তিশালী সংগঠন প্রতিষ্টায় বিশ্বাসী। তাঁর হৃদয়ে বাংলাদেশ, চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ, আদর্শে বঙ্গবন্ধু, রাজনৈতিক অনুসরনে জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আওয়ামীলীগের অত্যন্ত প্রহরী।এস এম রাজু খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক পদের দায়িত্ব পালন করা থেকে শুরু করে খুলনা জেলা যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করে এখন খুলনা শরনখোলায় মহানগর আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পদের দায়িত্ব সততা ও নিষ্ঠার সাথে পালন করে আসছেন। এ বিষয়ে আলাপচারিতায় অত্র এলাকার আইডল ও আওয়ামীলীগের একজন সিনিয়ার রাজনিতিবিদ এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে গড়া সৈনিক ডাঃ সাজিদ হাসান রানা বলেন আমি তরুণ প্রজন্মের হয়ে বিশ্বাস করি, খুলনা আওয়ামী যুবলীগের দুঃসময়ে ঐক্যবদ্ধ আওয়ামীলীগ গড়ে তোলা আমাদের লক্ষ্যে, কাউয়া, কুকিল মুক্ত। এবং একটি মাদকমুক্ত খুলনা মহানগর, সন্ত্রাসমুক্ত শহর, জঙ্গিবাদমুক্ত প্রজন্ম এবং একটি শক্তিশালী আওয়ামীলীগের খুলনা মহানগর ইউনিট প্রতিষ্টার লক্ষ্যে খুলনা মহানগর আওয়ামী যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদের দায়িত্ব এস এম রাজুকে দেওয়া খুব প্রয়োজন। কোন ব্যক্তি নয়, তিনি এখন আওয়ামী যুবলীগের একটি প্রতিষ্ঠান। আওয়ামী লীগের বিশ্বস্থ নিবেদিত প্রাণ। তিনি বঙ্গবন্ধুর সৈনিক। জননেত্রী শেখ হাসিনার সিপাহশালার হাতিয়ার।

Leave A Reply

Your email address will not be published.